১০:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ৫ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পুলিশের রাইফেলের গুলিতে দোকানী আহত

বার্তা ডেস্ক ॥ ঝালকাঠিতে পুলিশের রাইফেল থেকে বের হওয়া গুলিতে আহত চা দোকানী মনির মাহমুদ বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আর্থিক সংকটে রয়েছে। রাজাপুর থানার তারাবুনিয়া বাজার এলাকায় গত ২৪ ডিসেম্বর শনিবার দিবাগত রাত পৌনে ১টায় ঘটনাটি ঘটলেও তা জানাজানি হয় ২৭ ডিসেম্বর বুধবার দুপুরে। উপার্জনের একমাত্র অবলম্বন চা-পানের দোকানটি বন্ধ থাকায় মনিরের চিকিৎসা ব্যয় সংকুলান করতে পারছেনা তার পরিবার। এতে ঐ পরিবারটি মানবেতর জীবন যাপন করছে। এ ঘটনায় কনষ্টেবল নুরুল ইসলামকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এ- অপস) প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আহত মনির মাহমুদ রাজাপুর উপজেলার সাতুরিয়া ইউনিয়নের উত্তর তারাবুনিয়া গ্রামের রোলা এলাকার মৃত জয়নাল আবেদীনের ছেলে। সে একই ইউনিয়নের লেবুবুনিয়া বাজারে ছোট্ট একটি দোকানে চা পান বিক্রি করে রোজগার করেন। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে আহত মনির বলেন, ‘লেবুবুনিয়া বাজারে ২৪ ডিসেম্বর শনিবার দিবাগত রাত সারে ১২ টায় টহলে আসেন থানা পুলিশ। তখন আমি দোকানে চা বানাচ্ছিলাম। হটাৎ কনস্টেবল নূরুল ইসলাম এর হাতে থাকা বন্দুক থেকে গুলি বের হয়ে আমার পায়ে লাগে। এতে পায়ের পাতা ঝাঝরা হয়ে যায়। আহত অবস্থায় পুলিশের লোকেরাই আমাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়।’ গুলিবিদ্ধ মনির বর্তমানে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৪র্থ তলায় সার্জারী বিভাগের ২নং ওয়ার্ডের ১০ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন রয়েছে। তবে তার দোকান বন্ধ থাকায় অর্থ সংকটের কারণে চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে বেগ পেতে হচ্ছে। মনিরের পরিবার অর্থাকষ্টে ভুগছে। তার পরিবারে ‘ঘরে এক দিনের (চাল/ডাল) খাবারও নেই।’ বুধবার পর্যন্ত পুলিশের পক্ষ থেকে মনিরকে ৩ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। যা প্রথম দিনেই শেষ হয়ে গেছে। ঘটনার সময় সেখানে দায়িত্বরত রাজাপুর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এস.আই) আজাদ জানান, ‘আমরা টহল দিতে লেবুবুনিয়া বাজারে যাই। সেখান থেকে অন্যত্র যাওয়ার উদ্দেশ্যে অটোতে উঠতেছিলাম তখন হটাৎ করে কনস্টেবল নুরুল ইসলামের আগ্নেআস্ত্র থেকে একটি মিস ফায়ার হয়। এতেই মনির আহত হয়।’ রাজাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান বলেন, ‘হাটার সময় মিস ফায়ার হয়ে কনস্টেবলের হাতিয়ার থেকে গুলি বের হয়েছে। তবে আহত ব্যক্তি মুমুর্ষ অবস্থায় নেই। তার চিকিৎসার খোঁজ খবর আমরা (পুলিশ) নিচ্ছি। আর্থিক বিষয়টিও দেখছি।’ ঝালকাঠির পুলিশ সুপার আফরুজুল হক টুটুল জানান, ডিউটির সময় কনষ্টেবলের শর্টগান থেকে অসাবধানতাবশত গুলিটি বের হয়েছে। আহত মনির মাহমুদের চিকিৎসার সার্বিক খোঁজ রাখা হচ্ছে। বর্তমানে তিনি সুস্থ আছেন। এ ঘটনায় কনষ্টেবল নুরুল ইসলামকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে রাজপুর থানার ওসির শুপারিশে বরখাস্ত করে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এ- অপস) প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

Add

আপলোডকারীর তথ্য

Barisal Sangbad

বরিশাল সংবাদের বার্তা কক্ষে আপনাকে স্বাগতম।