০২:৫০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

র‌্যাব-৮ এর অভিযানে আটক চার ডাকাত

ডাকাতি কাজে ব্যবহৃত প্রাইভেট কার ও মাইক্রোবাসসহ সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্রের ৪ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৮।

মঙ্গলবার ( ২ জুলাই) বরিশাল-মাদারীপুর মহাসড়কের রাজৈর এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

বুধবার (৩ জুলাই) বিকেলে র‌্যাব-৮ এর বরিশাল সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অধিনায়ক লেঃ কর্নেল জুবায়ের আলম এ তথ্য দেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, গত ২৯ জুন সন্ধ্যা ৭ টার দিকে এই সংঘবদ্ধ ডাকাত চক্র গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা থেকে একজন ব্যক্তিকে টার্গেট করে। সেই ব্যক্তিকে ময়মনসিংহে তার বাড়িতে পৌছে দেবার কথা বলে যাত্রী হিসেবে তাকে ডাকাত চক্রের ব্যবহৃত মাইক্রোবাসে তুলে নেয়। সেই মাইক্রোবাসে আগে থেকেই এই চক্রের অন্যান্য সদস্যরা যাত্রী বেশে অবস্থান করছিল।

পরবর্তীতে তাদের পরিকল্পনা মাফিক রাজেন্দ্রপুর চৌরাস্তা পেরিয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের নির্জন একটি স্থানে নিয়ে অস্ত্রের মুখে প্রথমে তার সর্বস্ব কেড়ে নেয়। এরপর তারা অপহৃত ব্যক্তির বাড়িতে ফোন করে মুক্তিপণ হিসেবে নগদের মাধ্যমে আরও ৫০ হাজার টাকা আদায় করে।

এই কার্যক্রম শেষে ডাকাত দল ময়মনসিংহের ভরাডোবা এলাকার নির্জন একটি স্থানে অপহৃত ব্যক্তির হাত পা বেঁধে ফেলে রেখে চলে যায়। র‌্যাব এই ভুক্তভোগী ব্যক্তির সংবাদ প্রাপ্তির পর তাদের গ্রেপ্তারের জন্য গোয়েন্দা তৎপরতা বৃদ্ধি করে।

পরবর্তীতে এই চক্র ২ জুলাই দুপুরে বেনাপোল বন্দর থেকে ঠিক একইভাবে দুইজন বিদেশফেরত যাত্রীকে টার্গেট করে। ডাকাত দলের একজন সদস্য সেই যাত্রী দু’জনের সাথে একটি পাবলিক বাসে সাধারণ যাত্রী হিসেবে অবস্থান নেয়।

অন্যদিকে ডাকাতের অন্যান্য সদস্যরা তাদের ব্যবহৃত একটি প্রাইভেটকার নিয়ে বাসটিকে অনুসরণ করে। এই ডাকাত চক্রের আরেকটি দল একটি নোয়া মাইক্রোবাস নিয়ে ঢাকা গোপালগঞ্জ মহাসড়কের পাশে সাম্পান নামক একটি হাইওয়ে রেস্তোরার কাছাকাছি স্থানে আইন শৃংখলা বাহিনীর পরিচয়ে বাসটির গতি রোধ করে এবং প্রবাসী যাত্রীদু’জনকে যাত্রী বেসি ডাকাত সদস্যের সহায়তায় বাস থেকে নামিয়ে নিজেদের ব্যবহৃত মাইক্রোবাসে তোলে।

ডাকাত চক্রটি অপহৃত ব্যক্তিদের নিয়ে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে আসার পর তাদের কাছ থেকে বৈদেশিক মুদ্রাসহ একটি ব্যাগ ও অন্যান্য মালামাল লুট করে এবং তাদেরকে হাত পা বেঁধে রাস্তায় ফেলে দেয়। এরপর তারা বরিশাল-মাদারীপুর মহাসড়কের রাজৈরে একটি হাইওয়ে রেস্তোরাঁয় যাত্রা বিরতি করে লুটকৃত মালামাল নিজেদের মধ্যে বন্টনের পরিকল্পনা করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পেরে র‌্যাব ৮ অভিযান চালিয়ে ডাকাত দলের দলনেতা মেহেদী হাসান (৪০) সহ চারজনকে আটক করে। আটক অন্যান্য ডাকাত সদস্যরা হলো, সাইফুল ইসলাম (২৮), মো: ওমর ফারুক (৩৬) ও মো: রেজাউল হক কিরন (৪০)।

এসময় ঘটনার সাথে জড়িত বাকি তিনজন পালিয়ে যায়। র‌্যাব ঘটনাস্থল থেকে ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত একটি মাইক্রোবাস, একটি প্রাইভেট কার, বিপুল পরিমান দেশীয় অস্ত্র ও ২ টি খেলনা পিস্তল উদ্ধার করে।

র‌্যাব জানায়, তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় দলনেতা মেহেদী ২০১৭ সালে ইয়াবা বহন ও সেবনের মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে গেলে সেখানে এই ডাকাত চক্রের আরেক পলাতক সদস্যের সাথে তার পরিচয় হয়। কারাগারে থাকা অবস্থাতেই তারা এই ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করে।

জিজ্ঞাসাবাদে আরও জানা যায় পরবর্তীতে তারা জামিনে মুক্ত হয়ে সংঘবদ্ধভাবে ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে এধরণের ডাকাতি ও অপহরণ কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। উল্লেখ্য যে, দলনেতা মেহেদীর বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগরীর পল্টন থানায় একটি ডাকাতি মামলা সহ বিভিন্ন থানায় অস্ত্র ও মাদকসংক্রান্ত আরও ১০ টি মামলা রয়েছে। এছাড়াও অন্য সদস্যদের বিরুদ্ধেও একাধিক মামলার তথ্য পাওয়া যায়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মাদারীপুর জেলার রাজৈর থানায় নিয়মিত মামলা করে হস্তান্তর করা হবে বলে র‌্যাব জানায়।

ট্যাগস :

Add

আপলোডকারীর তথ্য

Barisal Sangbad

বরিশাল সংবাদের বার্তা কক্ষে আপনাকে স্বাগতম।
জনপ্রিয় সংবাদ