০৪:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দাফনের ৯ দিন পর বাড়ি ফিরলেন তরুণী!

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে দাফনের ৯ দিন পর বাড়ি ফিরলেন নিখোঁজ তরুণী রোকসানা আক্তার (৩০)। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার গুণবতী ইউনিয়নের রাজবল্লভপুর গ্রামে। এ নিয়ে পুরো এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসীর প্রশ্ন, দাফন করা নারী কে? অপরদিকে ফিরে আসা তরুণীকে এক নজর দেখতে উৎসুক মানুষ তার বাড়িতে ভিড় জমায়। ফিরে আসা রোকসানা ওই গ্রামের মৃত তাজুল ইসলামের মেয়ে।

রোববার (৩০ জুন) বিকেলে সরজমিনে গিয়ে জানা গেছে, মে মাসের শেষ দিকে রোকসানা আক্তার চৌদ্দগ্রামে নিজ বাড়ি থেকে ছোট ভাই সালাহউদ্দিনের চট্টগ্রামের ষোলশহরের বাসায় বেড়াতে যান। পহেলা জুন ভোরে কাউকে না জানিয়ে বাইরে থেকে দরজা থেকে লাগিয়ে রোকসানা বাসা থেকে বের হন।

এরপর দীর্ঘদিন আত্মীয়স্বজনসহ সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। গত ১৭ই জুন ঈদুল আজহার দিন বিকেলে ফেনী শহরে ভাড়া বাসায় অবস্থানরত খালাতো বোন হাজেরা আক্তার ও খালাতো ভাই শাহজাহান খবর পান, ফেনী শহরের জিয়া মহিলা কলেজের সামনে ড্রেনের মাঝে একজন নারীর মরদেহ পড়ে আছে। তারা সেখানে গিয়ে মরদেহের চেহারা রোকসানা আক্তারের চেহারার সাথে মিল দেখে ভাই এবায়দুল হককে খবর পাঠান। এরই মধ্যে ফেনী শহর পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ মরদেহটির সুরতহাল শেষে উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়।

রাতেই এবায়দুল হক জিয়া মহিলা কলেজের ড্রেন এলাকায় পৌঁছে আশপাশের মানুষকে বোনের ছবি দেখিয়ে মরদেহটি একইরকম কিনা জিজ্ঞেস করলে সকলেই ছবির সাথে মিল রয়েছে বলে জানান। পরে এবায়দুল হকসহ আত্মীয়স্বজনসহ ফেনী শহর পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে মরদেহ উদ্ধারকারী উপ-পরিদর্শক প্রতুল দাসের সাথে দেখা করে বোন রোকসানার ছবি দেখান। উপস্থিত পারস্পরিক আলোচনায় উপ-পরিদর্শক প্রতুল দাসকে তারা রোকসানার মরদেহ শনাক্ত করে।

পরদিন ময়নাতদন্ত শেষে পুলিশ এবায়দুল হকের হাতে বোন রোকসানা আক্তারের মরদেহ হস্তান্তর করে। ওইদিন বাদ আছর গুণবতী ইউনিয়নের রাজবল্লবপুর মধ্যমপাড়ায় সামিশকরা দীঘির দক্ষিণ পাড়ে তার মরদেহ দাফন করা হয়। নামাজে জানাজায় ইমাম মাওলানা আবু তাহের, ভাই এবায়দুল হকসহ এলাকার ধর্মপ্রাণ মুসলগণ উপস্থিত ছিলেন।

মরদেহ দাফনের ৯ দিন পর গত ২৬ জুন বুধবার বিকেলে ঘটে বিপত্তি। হঠাৎ ‘দাফন করা’ রোকসানা সশরীরে বাড়িতে হাজির হলে আঁতকে উঠেন সবাই। তাৎক্ষণিক ঘটনাটি জানাজানি হলে বাড়ির উঠানে আশ-পাশের উৎসুক মানুষ তাকে একনজর দেখতে ভিড় জমায়। এ সময় উপস্থিত জনতার প্রশ্নের জবাবে রোকসানা বলেন, কে বলছে আমি মারা গেছি? আমি ঢাকায় ঘুরতে গেছিলাম। শরীর খারাপ থাকায় কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারিনি।

রোকসানা আরও বলেন, আমি চট্টগ্রাম ভাইয়ের বাসা থেকে কাউকে কিছু না বলে ঢাকায় চলে যাই। সেখানে গিয়ে আমি একটি চাকরি পেয়েছি। যেহেতু আমি বাড়ি থেকে কোন কাপড় নিয়ে যাইনি, তাই কাপড় নিয়ে যাওয়ার জন্য বাড়িতে ফিরে আসি।

রোকসানার ভাই এবায়দুল হক বলেন, ‘খালাতো ভাই-বোনের সংবাদ পেয়ে ছবিতে কিছুটা মিল থাকার কারণে বোনের মরদেহ মনে করে পুলিশ থেকে মরদেহটি এনে দাফন করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে রোকসানা জীবিত বাড়ি ফিরলে ফেনী মডেল থানায় গিয়ে পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে’।

স্থানীয় ইউপি সদস্য আবু মুসা বলেন, ‘লোক মারফতে বিষয়টি শুনেছি। তবে কার মরদেহ দাফন করা হয়েছে সেটিই এখন দেখার বিষয়’। ফেনী শহর পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক প্রতুল দাস শনিবার সন্ধ্যায় বলেন, ‘উদ্ধার করা মরদেহটি বিকৃত ছিল।

এবায়দুল হক ও তার স্বজনরা উদ্ধারকৃত মরদেহটি রোকসানার বলে শনাক্ত করে আমার কাছ থেকে নিয়ে যায়। এখন যেহেতু তাদের বোন সশরীরে বাড়িতে উপস্থিত হয়েছে, তাই আমরা বিষয়টি নতুন করে তদন্ত করবো’।চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি ত্রিনাথ সাহা বলেন, ‘তরুণী নিখোঁজ, উদ্ধার, দাফন ও আবার ফিরে আসার বিষয়ে কেউ আমাকে অবগত করেনি। খবর নিয়ে দেখবো-আসলে কি ঘটেছে’।

ফেনী মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ রুহুল আমীন বলেন, ঈদের দিন সন্ধ্যায় এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। তারপর মরদেহের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এই সময় খবর আসে মরদেহের স্বজনদের খোঁজ পাওয়া গেছে।

পরে তার ভাইরা এসে মরদেহের পরিচয় শনাক্ত করলে পুলিশ সকল আইনি কার্যক্রম শেষ করে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে। পরে যারা বাদী হয়ে মরদেহ নিয়ে গিয়েছিল তারা এসে জানান তাদের বোন ফিরে আসছে। এখন যেহেতু ওই নারী ফিরে আসছে তাহলে ওই নারীর পরিচয় শনাক্তে আমরা আইনি কার্যক্রম শুরু করবো।

ট্যাগস :

Add

আপলোডকারীর তথ্য

Barisal Sangbad

বরিশাল সংবাদের বার্তা কক্ষে আপনাকে স্বাগতম।