০৩:১৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাল্টাপাল্টি অভিযোগ গৌরনদী পৌরসভায়

হারিছুর রহমান হারিচ মেয়র পদ থেকে অব্যাহতি নিয়ে উপজেলা নির্বাচন করায় উপনির্বাচন হচ্ছে গৌরনদী পৌরসভায়। আর এ নির্বাচনকে ঘিরে স্থানীয় আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভক্তি দেখা দিয়েছে।

যেখানে উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী ও তাকে সমর্থনকারীরা একদিকে আর পরাজিত প্রার্থী এবং সাবেক মেয়র হারিছুর রহমান হারিচের সমর্থকরা অপরদিকে রয়েছে।

যার ধারাবাহিকতায় মেয়র পদে চারজন প্রার্থীর মধ্যে দুজনের সমর্থকরা প্রচারণার মাঠে বেশ প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা চালাচ্ছেন, এ নিয়ে আবার প্রভাব বিস্তারকারী প্রার্থীদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগও রয়েছে।

তবে সুষ্ঠু ভোট হলে সব প্রার্থীই বিজয়ী হওয়ার কথা বলছেন।

গৌরনদী পৌরসভার উপ-নির্বাচনে নারিকেল গাছ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী মো. আলাউদ্দিন ভুঁইয়ার অভিযোগ প্রতিদ্বন্দ্বী মোবাইল ফোন প্রতীকের প্রার্থী এইচ এম জয়নাল আবেদীনের কর্মী-সমর্থকরা তার কর্মী-সমর্থকদের ওপর হামলা চালাচ্ছেন ও নানানভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন।

এমনকি ভোটারদের কেন্দ্রে যেতেও ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। সেই সঙ্গে সম্প্রতি স্থানীয় সংসদ সদস্যের সমর্থনে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছেন জয়নাল আবেদীনের কর্মী-সমর্থকরা।

আর এসব অভিযোগ নিয়ে এরই মধ্যে আলাউদ্দিন ভুঁইয়া নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে একাধিকবার লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন। সর্বশেষ ২৩ জুন প্রধান নির্বাচন কমিশনারের কাছে আলাউদ্দিন ভুঁইয়ার লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। যেখানে স্থানীয় সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী জয়নাল আবেদীনকে সমর্থন দেওয়ার কথা উল্লেখ করেছেন অভিযোগকারী। সেই সঙ্গে জয়নাল আবেদীনের সমর্থকদের বিরুদ্ধে বর্তমানে আলাউদ্দিন ভুঁইয়ার সমর্থকদের ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য ভয়ভীতি দেখানো ও তাদের ওপর ব্যাপক হামলা চালানোর কথাও লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার (২০ জুন) আরেকটি লিখিত আবেদনে বরিশালের গৌরনদী পৌরসভা উপ-নির্বাচনে সবগুলো কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ দাবি করে পর্যাপ্ত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন ও প্রত্যেক ভোটকেন্দ্রে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন আলাউদ্দিন ভূইয়া। যেখানে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ও সমর্থকদের বিরুদ্ধে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করার কথাও উল্লেখ করা হয়।

তবে লিখিত অভিযোগে বিশ্বাসী নন বলে বাংলানিউজকে জানিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী জয়নাল আবেদীন। তিনি বলেন, যারা নির্বাচন নিয়ে কাজ করছেন এবং পৌরসভার যারা ভোটার তারা প্রকৃত দৃশ্য দেখছেন। আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বহিরাগত সন্ত্রাসীদের নিয়ে পৌরসভায় মহড়া দিচ্ছেন। যারা পৌরসভার ভোটার না, তারাই তার সঙ্গে রয়েছেন। কিন্তু আমার সঙ্গে পৌরবাসী রয়েছেন।

স্থানীয় সংসদ সদস্যের সমর্থনের বিষয়ে তিনি বলেন, স্থানীয় এমপির বাড়ি আগৈলঝাড়ায়, আর নির্বাচন হচ্ছে গৌরনদী পৌরসভায়। তিনি এখানকার ভোটার না, যে তিনি এখানে আসবেন।

তিনি বলেন, আপনারা জানেন এবার দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হচ্ছে না। তবে আমার বিশ্বাস তিনি (স্থানীয় সাংসদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ) এখানকার ভোটার হলে আমাকে ভোট দিতেন। আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর যখন যা মনে হচ্ছে তাই বলছেন, বানোয়াট সব অভিযোগ দিয়ে যাচ্ছেন, আমি কোনো অভিযোগ দিতে চাই না। তবে বলতে চাই সুষ্ঠু ভোট হলে শতভাগ আমাদের বিজয় নিশ্চিত।

সুষ্ঠু ভোট হলে জয়ের আশা করছেন আলাউদ্দিন ভুঁইয়া, চামচ প্রতীকের সিকদার সফিকুর রহমান রেজাউল ও জগ প্রতীকের প্রার্থী মোশারফ হোসেন মিঞা।

এদিকে জেলার গৌরনদী পৌরসভার মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে প্রচারণার শেষ মুহূর্তে পৌর এলাকার নয়টি ওয়ার্ডের ১৪টি গ্রামে কিছুটা উত্তাপ ছড়িয়ে পড়েছে। পাশাপাশি সাধারণ ভোটারদের মধ্যেও আতঙ্ক বিরাজ করছে। তবে নির্বাচন অফিস ও জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা বলছেন ভোটগ্রহণ শতভাগ সুষ্ঠু হবে, আর এতে কেউ ব্যত্যয় ঘটাতে চাইলে তার বিরুদ্ধে আইনি কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Add

আপলোডকারীর তথ্য

Barisal Sangbad

বরিশাল সংবাদের বার্তা কক্ষে আপনাকে স্বাগতম।